অলৌকিক গাছ সজিনার বিস্ময়কর উপকারিতা 

সজিনা হলো খরা সহিষ্ণু ও গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলের একটি উদ্ভিদ যার বৈজ্ঞানিক নাম "Moringa Oleifera" এবং এর পুষ্টিগুণ বিবেচনায় এর নাম সুপারফুড ও পুষ্টি ডিনামাইট  এবং এ গাছের অলৌকিক উপকারিতা রয়েছে যার ছাল, পাতা, ডাটা, ফল ও ফুলের বিপুল ঔষধি গুণাগুণ বিদ্যমান।

অলৌকিক গাছ সজিনার  বিস্ময়কর উপকারিতা 

আমরা সাধারণত বেশিরভাগই সজনের ডাঁটা ও পাতা খেয়ে থাকি কিন্তু এর পুষ্টিগুণ বা উপকারিতা সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি না যে এর প্রতিটি উপাদানে ঔষধি গুণাগুণ এ ভরপুর। এটি প্রায় সব বাড়ির আশেপাশে দেখতে পাওয়া যায়। সজিনা গাছের অলৌকিক উপকারিতা এর জন্য দক্ষিণ আফ্রিকায় সজিনা গাছকে ‘জাদুর গাছ’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। সজিনা বা সজনে হচ্ছে Moringa গনের Moringaceae পরিবারের একটি বৃক্ষ জাতীয় গাছ যার কাঠ অত্যন্ত নরম, বাকলা আঠাযুক্ত ও কর্কি। এর সাধারণ নাম ‘সাজনা বা সজিনা’ আর শুদ্ধ ভাষায় সজিনা হিসেবে পরিচিত। 

সজিনা গাছের বৈজ্ঞানিক নাম "Moringa Oleifera Lam" এবং ইংরেজি নাম "Drumstick"।

সাধারণত এ গাছের উচ্চতা ২৩ ফুট থেকে ৩৩ ফুট বা তারও বেশি হয়ে থাকে। এটি তিন ধরনের হয় যেমন নীল, শ্বেত ও রক্ত সজিনা। সজিনা গাছের অলৌকিক উপকারিতা রয়েছে এবং এর ছাল, পাতা, ডাটা, ফল ও ফুলের অনেক গুণাগুণ বিদ্যমান।

 

সজিনার উপকারিতা

সজিনার উপকারিতা অনেক যা বিভিন্ন খাদ্যগুণসমৃদ্ধ সবজি হিসেবে পরিচিত। এ গাছকে প্রচলিত বিভিন্ন খাদ্য প্রজাতির মধ্যে সর্বোচ্চ পুষ্টিমানসম্পন্ন উদ্ভিদ বলা হয়ে থাকে। এর মূল, ছাল, ফল, ফুল, বীজ, পাতা সবার মধ্যেই আছে বিশেষ ঔষৌধি গুণাগুণ। সাধারণত ধরা হয় যে  সজিনার উপকারিতা এত যে এটি প্রায় ৩০০ প্রকার ব্যাধির প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করতে পারে। সাম্প্রতিক সজিনা সুপারফুড হিসাবে ঘোষিত হয়েছে

এবং বিজ্ঞানীরা এটিকে “পুষ্টির ডিনামাইট ” হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। সজিনার উপকারিতা এত যে এটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এক প্রকার প্রতিষেধক কারণ এটি রক্তে রক্তে শর্করার পরিমাণ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে পারে এবং পিত্তথলির কার্যকারিতা বাড়ায় যা রক্তের গ্লুকোজ হ্রাস করতে সহায়ক। এর প্রধান ঔষধি রাসায়নিক পদার্থ হচ্ছে–বিটা সিটোস্টেরোল, এক্যালয়েডস- মোরিনাজিন এবং এর মধ্যে আছে ভিটামিন এ, বি, সি, নিকোটিনিক এসিড, প্রোটিন ও চর্বি জাতীয় পদার্থ ও কার্বোহাইড্রেট যা আমাদের দেহের জন্যে খুবই উপকারি।

 

সজনে ডাটার উপকারিতা

সজনের কাঁচা লম্বা ফল বা ডাটা সবজি হিসেবে খাওয়া হয় যা স্বাস্থ্য সুরক্ষার কাজে বেশ প্রয়োজনীয়। সজনে ডাটার উপকারিতা অনেক এতে রয়েছে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স এবং ফোলেট, ভিটামিন বি-৬, থায়ামিন, রিভোফ্লাভিন, প্যানটোথেনিক এসিড এবং নিয়াসিন যা আমাদের দেহের শর্করা, প্রোটিন এবং চর্বি হজমে সহায়তা করে। এছাড়াও প্রচুর ক্যালসিয়াম, লৌহ, কপার, ম্যাঙ্গানিজ, জিংক, সেলেনিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম পাওয়া যায় যার মাধ্যমে আমরা আমাদের পুষ্টি মিটাতে পারি। সজনে ডাটার উপকারিতা গুলো হলো-

  • ঠান্ডা জ্বর এবং কাশি উপশম করে
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে
  • পেটের সমস্যা সমাধানে
  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে
  • হাড় শক্ত ও মজবুত করে
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
  • বসন্ত রোগ প্রতিরোধ করে
  • মুখে রুচি বাড়ে
  • শ্বাসকষ্ট কমায়

 

সজিনা পাতার উপকারিতা

সবথেকে সজিনা পাতার উপকারিতা বেশি তাই আমাদের এটি খাবারের তালিকায় বেশি রাখা জরুরি। সজিনার পাতা খাওয়া হয় শাক হিসেবে।

শরীরের প্রয়োজনীয় প্রায় সব ভিটামিনের সাথে আবশ্যকীয় প্রায় সবগুলি এমাইনো এসিড সজিনা পাতায় বিদ্যমান থাকে তাই এটি খাবারের মধ্যে খুবই উপকারি খাবার। সজিনা পাতার ছালের বড়ি অম্ল রোগের জন্যে বিশেষ উপকারী। উচ্চ রক্ত চাপের চিকিৎসায় সজনের পাতা খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ। সজিনা পাতার গুণাগুণ প্রচুর, এটি রান্না করে খেলে ইনফ্লুয়েঞ্জার জ্বর ও যন্ত্রনাদায়ক সর্দিতে আরামবোধ হয়। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে এতে দুধের চেয়েও বেশি ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম ও জিংক রয়েছে যা স্বাস্থ্য সুরক্ষার কাজে জরুরী উপাদান। 

সজিনা গাছের অলৌকিক উপকারিতা

একারণেই বলা হয় কারণ এর সব উপাদানে পুষ্টি ও ঔষধি গুণ দিয়ে ভরপুর। সজিনা পাতা মুখে রুচি বাড়াতে সাহায্য করে। সজিনা পাতা কেটে ফোঁড়া বা টিউমারে দিলে উপকার পাওয়া যায় এবং বাতের ব্যথায়ও এটি ভালো কাজে দেয়। অপরদিকে এর পাতার রস খেলে শ্বাসকষ্ট সারে। তাই বলা যায় সজিনা পাতার উপকারিতা অপরিসীম এবং আমাদের এ সম্পর্কে যেনে নিত্যদিনের খাবারের তালিকায় রাখতে হবে।

 

সজিনার ছাল, ফল ও ফুলের উপকারিতা

প্রবীণরা বলেন সজনের ফুল সবজি হিসেবে খেলে হাম-বসন্ত হবে না অপরদিকে আবার ইউনানী ডাক্তাররা বলেন, সজনে ফুল সর্দি-কাশি, যকৃতের দোষ এবং কৃমির মতো রোগে ভালো কাজ করে। সজিনার ঔষধি গুণাগুণ এর মধ্যে সজিনা ফুলেরও অনেক গুন রয়েছে। এছাড়াও সজনের ফুল বাত ও শিরারোগ উপশম করে।

বাতের ব্যথা উপশমে সজনে গাছের ছাল বেশ কার্যকর হিসেবে পরিচিত। এর মূলের ছাল নাশক, হজম বৃদ্ধিকারক এবং হৃদপিন্ড ও রক্ত চলাচলের শক্তিবর্ধক হিসাবে কাজ করে এবং মূলের ছালের জলীয় নির্যাস স্নায়ুবিদ দূর্বলতা, তলপেটের ব্যাথা ও হিস্টিরিয়া চিকিৎসার জন্য খুবই উপকারি।



তাই বলা যায় সজিনা গাছের অলৌকিক উপকারিতা আছে যা আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কাজে দিবে এবং প্রতিদিনের ঔষধের কাজ করবে। প্রবীণরা বলেছেন সজিনা গাছের অলৌকিক উপকারিতা ও বিপুল ঔষধি গুণাগুণ

থাকায় এটি আমাদের এক প্রকার নিয়ামত।