ঔষধি গাছ - নয়নতারা

আমরা শখের বসে কিংবা সেীন্দর্য্য বৃদ্ধিতে হামেশা বিভিন্ন ধরনের ফুল গাছ লাগিয়ে থাকি, তেমনি একটা গাছ নয়নতারা। কিন্তু নয়নতারা শুধু আমাদের বাড়ির শোভা বৃদ্ধি করে না। নয়নতারার ঔষধি গুণ ও উপকারিতাও রয়েছে বেশ। যেন ছোট খাট একটা ঔষধ ফ্যাক্টরি।

ঔষধি গাছ - নয়নতারা

                      

 

 ফুল পছন্দ করে না এমন মানুষ দুনিয়াতে নেই। অনেক মানুষ নিজ বাড়ির আঙিনায় ফুল গাছ রোপন করেন। ফুল শুধু ঘরের শোভাই বর্ধন করে না অনেক ফুল গাছেরই আছে বিশেষ গুন  যেমন: নয়নতারা। এটি একটি ঔষধি গাছ। নয়নতারা গাছ যেমন ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে তেমন ঔষধি গাছ হিসাবে কাজ করে। যেসব গাছ মানুষের জীবন রক্ষা করে তাকে ঔষধি গাছ বলা হয়।

 

নাম: এই গাছকে বিভিন্ন নামে ডাকা হয়। বাংলায় এই গাছকে নয়নতারা গাছ বলার পাশাপাশি একে গুলফেরিংগী, কটকতারা, সদাসোহাগীও বলা হয়। ইংরেজিতে এই গাছের নাম Cape periwinkle, Madagascar periwinkle. এবং এই গাছের বৈজ্ঞানিক নামও রয়েছে। এই গাছের বৈজ্ঞানিক নামটি হল Catharantus roseus. এছাড়াও অঞ্ছলভেদে নামের ভিন্নতা আছে।

 

স্থান: এই ঔষধি গাছের আদি উৎপত্তি স্থল মাদাগাস্কার। আদি নিবাস মাদাগাস্কার তবে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান এবং আফ্রিকা মহাদেশ সহ আরও বেশ কয়েকটি দেশে এদের দেখা যায়।

 

গঠন বৈশিষ্ট্য : নয়নতারা বহু বর্ষজীবী উদ্ভিদ। এরা গুল্মজীবী উদ্ভিদ। এরা ২-৩ ফুট বেশি লম্বা হয় না। এদের পাপড়ি ডিম্বাকৃতি ও মসৃণ। এই গাছের ফুলগুলো গোলাপী ও সাদা হয়। প্রতিটি ফুলে পাঁচটি করে পাপড়ি থাকে। এরা সস্পুক উদ্ভিদ। এদের কান্ড কোনাচে বেগুনী। এদের ফুল গন্ধহীন। এদের বীজ চাষ করা হয়।

 

ঔষধি গাছ নয়নতারার উপকারিতা: নয়নতারা এমন একটি ঔষধি গাছ যার ফুলও ঔষধ  হিসেবে ব্যবহার হয়। নানা ভাবে মানব দেহের উপকার করে। নয়নতারা ফুলের থেকে গাছের উপকারিতা বেশি। নানা ভাবে এই গাছ আমাদের উপকার করে।

 

.নয়নতারা ফুলের পাপড়ির চা দুশ্চিন্তা দূর করে: মানুষের দুশ্চিন্তার শেষ নেই। এই  দুশ্চিন্তা মানুষের নানা রোগ সৃষ্টি করে। তাই নয়নতারা ফুলের পাপড়ির চা খেলে দুশ্চিন্তা অনেক কমে যায়।

 

.দেহের ক্ষমতা বাড়ায়: নয়নতারা ফুলের পাপড়ির চা খেলে দেহের ক্লান্তি দূর হয়। এবং কাজ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

 

.ক্যানসার প্রতিরোধ করে: নয়নতারা অনেক রোগের মহা ঔষধ। অনেক কঠিন রোগ নয়নতারা গাছের পাতা কান্ড ও ফুল ক্যান্সারের প্রতিরোধে সহায়তা করে।

 

. ক্ষত স্থানে এর ব্যবহার: অনেক সময় অসাবধানতা বশত আমাদের দেহে ক্ষত হয়। বাড়িতে যদি একটি নয়নতারা ফুলের গাছ থাকে তাহলে সহজেই নিরাময় পাওয়া যায়। নয়নতারা গাছের ডাল থেতলিয়ে ক্ষত স্থানে লাগালে খুব সহজে নিরাময় পাওয়া যায়।

 

.ক্রিমি রোগের নিরাময়: ঔষধি গাছ নয়নতারা ক্রিমি নিরাময় করে। নয়নতারা গাছের ডাল সিদ্ধ করে কিছু দিন নিয়ম মাফিক খেলে ক্রিমি রোগের সমাধান হয়।

 

. স্মরণ শক্তি বৃদ্ধি করে: স্মরণ শক্তি সবার সমান নয়। তাই স্মরণ শক্তি বৃদ্ধির জন্য একটি বিশেষ ঔষধি গাছ হর নয়নতারা। এই গাছের মূল,পাতা ও ফুল ভাল করে পানিতে ফুটিয়ে খেলে স্মরণ শক্তি বৃদ্ধি পায়। তবে এই পানি এক দের মাসের মত খেতে হবে।

. ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করে: বর্তমানে ব্লাড প্রেসারের সমস্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে ।  তাই প্রতিদিন সকালে ও রাতে নয়নতারার পাতা বেটে রস করে খেলে এই সমস্যার সমাধান হয়।

 

.চর্মরোগ নিরাময়: চর্মরোগ একটি অতি পরিচিত রোগ। যাদের চর্মরোগ জনিত সমস্যা হয় তারা নয়নতারা গাছের পাতা বেটে রস করে সেই রস দিয়ে শরীর পরিষ্কার করলে এই রোগ থেকে নিরাময় পাওয়া যায়। এছাড়াও তক উজ্জ্বল ও তরতাজা করে এই পাতার রস।

 

.ডায়াবেটিস: এটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য নয়নতারা বিশেষ উপকারী। গাছের সব অঙ্গ ও হলুদ থেতলিয়ে পানিতে ফুটিয়ে ঠান্ডা করে দিনে দুই বেলা খেলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। কারণ এই উপাদান দেহে চিনির মাত্রা কমায়। তাই ডায়াবেটিস এর মাত্রা দেখে খেতে হবে।

 

তবে নয়নতারা ঔষধি গাছের ঔষধ সেবনের থেকে গর্ভবতী মহিলা ও যাদের কিডনীর  সমস্যা তাদের দূরে থাকা ভাল। এছাড়াও বমি, মাথা ব্যথা হতে পারে।

 

 নয়নতারা গাছকে আমাদের উপকারি শত্রু বলা যায়। এটি ঔষধি গাছ কিন্তু এর পার্শপ্রতিক্রিয়াও আছে। সবাব জন্য নয়নতারা গাছের ঔষধ উপকারি নয়। তাই এই ঔষধি গাছের ঔষধ গ্রহনের পূর্বে সচেতন থাকতে হবে। সবকিছু বিবেচনা করে এই  গাছের ঔষধ খাওয়া উচিত।